আপনার সন্তান কি রাতে বিছানায় প্রস্রাব করে ? জেনে নিন কিভাবে সমাধান করবেন । - RoktoGhor.Com

আপনার সন্তান কি রাতে বিছানায় প্রস্রাব করে ? জেনে নিন কিভাবে সমাধান করবেন ।

এই দশটি উপায় অবলম্বন করলে আপনার বাচ্চা আর বিছানায় প্রস্রাব করবে না ।

আপনার সন্তান কি রাতে বিছানায় প্রস্রাব করে ? জেনে নিন কিভাবে সমাধান করবেন | রক্তঘর .কম

আপনার সন্তান কি রাতে বিছানায় প্রস্রাব করে ? জেনে নিন কিভাবে সমাধান করবেন ।
সন্তান কি রাতে বিছানায় প্রস্রাব করে 

বাচ্চাদের প্রায় সময় ই দেখা যায় যে তারা রাতে ঘুমের মধ্যে বিছানা প্রস্রাব করে ভিজিয়ে দেয় । যাহা খুব ই সমস্যার বিষয় । এই সমস্যার সমাধান করতে পারবেন একদম ঘরোয়া উপায় এ । নিচের লেখাগুলো মনোযোগ দিয়ে পড়ুন ।


শিশুরা বিছানায় কেনো প্রস্রাব করে ?


শিশুরা তাদের অনিচ্ছায় ই বিছানায় প্রস্রাব করে । বিছানায় প্রস্রাব করতে শিশুদের কোনোরূপ দোষ নেই । এটি সম্পূর্ণ শিশুদের অনিচ্ছায় ঘটে থাকে । সাধারণত কিছু অনিয়ম ভাবে চলাফেরা খাওয়াদাওয়া ইত্যাদি কারণে শিশুরা রাতে ঘুমের মধ্যে বিছানা ভিজিয়ে দেয় প্রস্রাব করে । 


শিশুদের বিছানায় প্রস্রাব করার জন্য রাগারাগি করা উচিত ?


না , একদম ই না । যেহুতু শিশুরা তাদের পুরোপুরি অনিচ্ছায় বিছানায় প্রস্রাব করে থাকে সেহুতু তাদের কে কোনো প্রকার রাগারাগি করা বুদ্ধিমান এর কাজ হবে না । একজন অভিভাবক হিসেবে ঠিকমত বুঝে শিশুকে গাইডলাইন দিতে হবে । 


শিশুদের বিছানায় প্রস্রাব ঠেকাতে কি করা উচিৎ ?


আপনার শিশু যদি বিছানায় প্রস্রাব করে তাহলে তাকে কোনোরূপ শাস্তি , রাগারাগি না করে সাইকোথেরাপি উপায় এ এর সমাধান করা যেতে পরে । 


শিশুকে অনুপ্রেরণা দেওয়া যেনো আর বিছানায় প্রস্রাব না করে । প্রতিদিন রাতে বিছানায় প্রস্রাব না করার পুরষ্কার হিসেবে তাকে কিছু উপহার দেওয়া , অন্তত উৎসাহ দিন যদি উপহার দিতে না পারেন ।


তাছাড়া এ সমস্যা সমাধানের কিছু উপায় আছে নিচে সেগুলো বর্ণনা করা হলো ।


বিজ্ঞদের পরামর্শ অনুযায়ী নিম্নোক্ত কিছু ঘরোয়া উপায় এ বাচ্চা শিশুদের বিছানায় প্রস্রাব করা থেকে বিরত রাখা যায়


কিভাবে বাচ্চাদের বিছানায় প্রস্রাব ঠেকানো যায় ?


বাচ্চাদের উপর কিছু উপায় প্রয়োগ করলে তারা আর বিছানায় প্রস্রাব করবেনা । নিচে সেই উপায় গুলো বিস্তারিত পাবেন ।


কিভাবে বাচ্চাদের বিছানায় প্রস্রাব ঠেকানো সম্ভব ?


নিম্নের দেওয়া উপায় সমূহ ফলো করলে আপনার বাচ্চা বিছানায় প্রস্রাব করা থেকে বিরত থাকবে । এই পদ্ধতি সমূহ বিজ্ঞ দের কাছ থেকে নেওয়া ।


দারুচিনির গুঁড়া ব্যাবহার 


যে সকল বাচ্চারা ঘুমের মধ্যে বিছানা ভিজিয়ে দেয় প্রস্রাব করে তাদেরকে পুরো একটা দারূচিনি চিবিয়ে খাইতে দিবেন । এতে রাতে বিছানায় প্রস্রাব এর সমস্যা কমে । 


এছাড়াও সকালে নাস্তায় দারুচিনি গুঁড়ো করে চিনির সঙ্গে মিশিয়ে বাচ্চাকে খেতে দিতে হবে । তাহলে বাচ্চার ঘুমের মধ্যে বিছানায় প্রস্রাব করার প্রবণতা হ্রাস পাবে । 


আরও পড়তে পারেন :

  1. মাথা ব্যথার কারন এবং পরিত্রাণের উপায় | Causes of headaches and ways to get rid of
  2. রক্তদানের উপকারিতা | Benefits of Blood Donation - New!
  3. চোখের নিচে কালো দাগ ? দূর করুন ঘরোয়া উপায়ে | Remove Dark Circle under the Eyes in a Homely Way - New!


অলিভ ওয়েল ব্যাবহার 


অলিভ ওয়েল খুব কার্যকরী কাজ করে থেকে । যে সকল বাচ্চারা রাতে বিছানায় প্রস্রাব করে তাদের কে , অলিভ ওয়েল গরম করে বাচ্চার নিম্নাঙ্গে এবং নিম্নাঙ্গের চারপাশে ভালো করে ম্যাসাজ করে দিলে ভালো ফলাফল পাওয়া যাবে । 


একই ভাবে প্রতিনিয়ত এভাবে ম্যাসাজ করতে পারেন । এতে বাচ্চার ঘুমের মধ্যে বিছানায় প্রস্রাব করার প্রবণতা কমানো যায় । এই পদ্ধতি অনুসরণ করে দেখতে পারেন । এতে দ্রুত ফল পাওয়া যায় ।


মধু ব্যাবহার করা 


মধু খুব উপকারী একটি জিনিস । বাচ্চাদের বিছানায় প্রস্রাব আটকাতে মধু খুব উপকারী । প্রতি রাতে ঘুমানোর আগে বাচ্চাকে এক চা চামচ মধু পান করাতে পারেন । 


এছাড়াও সকালে নাস্তার পর এক গ্লাস দুধ এর সাথে মধু মিশিয়ে খাওয়ালে ভালো ফল পাওয়া যায় । 



কিভাবে বাচ্চাদের বিছানায় প্রস্রাব আটকাবো ?


বাচ্চাকে দিনের বেলায় বেশি বেশি পানি পান করতে হবে । এবং রাতের বেলায় কম পরিমাণে পানি পান করতে হবে । রাতে ঘুমানোর আগে বাচ্চাকে মূত্রত্যাগ করিয়ে ঘুম পাড়াতে হবে । 


খেয়াল রাখতে হবে যেন বাচ্চা প্রতিদিন পাঁচ থেকে ছয় বার বাথরুম এ যায় । তাহলে রাতে প্রস্রাব এর চাপ থাকবে না ।


উপরোক্ত পদ্ধতি অনুসরণ করে চললে আপনার বাচ্চার ঘুমের মধ্যে বিছানায় প্রস্রাব করা কমতে পারে বলে আশাবাদী । 


সতর্কতা : 

উপরের  তথ্য গুলো বিভিন্ন বিজ্ঞদের কাছ থেকে নেওয়া । আপনার বাচ্চা যদি নিয়মিত বিছানায় প্রস্রাব করে  এবং প্রস্রাব এর রং যদি হলুদাভ হয় তাহলে নিকটস্থ হাসপাতালে গিয়ে অভিজ্ঞ ডাক্তার এর পরামর্শ নিতে হবে । 

পরবর্তী পোস্ট কিসের উপর চান কমেন্টে জানাতে পারেন । আমাদের সাথেই থাকুন । ধন্যবাদ । পোস্ট টি শেয়ার করে সবাইকে দেখার সুযোগ করে দিন । 

Post a Comment